নীড় / মনীষীর জীবনী / ৯. শ্রীরামকৃষ্ণ
Sriramkrishna

৯. শ্রীরামকৃষ্ণ

৯.শ্রীরামকৃষ্ণ
(১৮৩৩-১৮৮৬)

ছেলে বড় হল । পাঁচ বছরে পড়ল গদাধর । কামারপুর গ্রামের লাহাবাবুদের বাড়ির নাটমন্দিরে পাঠশালা । বাবা ক্ষুদিরাম চট্টোপাধ্যায় ছেলে গদাধরকে সেই পাঠশালায় ভর্তি করিয়ে দিলেন । কিন্তু পড়াশোনায় খুব বেশি মন নেই গদাধরের । শুধু বাংলাটা পড়তে ভাল লাগে । অংক কষতে গেলেই মাথা গুলিয়ে যায় ।

বামুনের ছেলে । ছোটবেলাতেই মুখে মুখে শিখেছে দেবদেবীর প্রণাম মন্ত্র । সেগুলো কিন্তু বেশ গড়গড়িয়ে বলে যেতে পারে । তার কিছুদিন পরেই রামায়ণ পড়তে পারে সুর করে । বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে গলার সুর এবং বলার ভঙ্গি ও তার সুন্দর হয়েছে । তাই মধুযোগীর বাড়িতে তার রামায়ণ পড়া শুনতে ভিড় জমে যায় ।

একদিন বিকেলবেলা সে রামায়ণ পাঠ করছে । বৃদ্ধ বৃদ্ধারাও শুনছে মনোযোগ দিয়ে । কাছেই আমগাছের ওপর বসে ছিল একটা হনুমান । সে লাফ দিয়ে ঠিক গদাধরের কাছে এসে পড়ল । তারপর পা জড়িয়ে ধরল গদাধরের । হইচই করে উঠল সবাই । কেউ বা ভয় পেয়ে উঠে চলে গেল । কিন্তু গদাধর একটুও নড়ল না । সে হনুমানের মাথায় পায়ে হাত বুলিয়ে দিল । বুঝি শ্রীরামচন্দ্রের আর্শীবাদ পেয়েই খুশী হয়ে রামভক্ত হনুমান আবার লাফ দিয়ে গাছে উঠে গেল ।

অদ্ভুত ছেলে গদাধর!সবসময়েই ভাবাবেশে মত্ত হয়ে থাকে । পথে পথে ঘুরে গান করতে করতে জ্ঞান হারিয়ে পড়ে যায় । লোকজন ছুটে এসে মাথায় ও মুখে জল ছিটিয়ে তার জ্ঞান ফিরিয়ে আনে ।

কামারপুর থেকে দু’মাইল দূরে আনুড় গ্রাম । সেখানে বিরাট এক গাছের তলায় আছে বিশালাক্ষীর থান । গাঁয়ের মেয়েরা দল বেঁধে চলেছে সেই বিশালাক্ষী দেবীর পূজা দিতে । হঠাৎ কোথুকে ছুটে এসে গদাধর সেখানে সেই দলে ঢুকে পড়ল । গাঁয়ের মেয়েরা ভাবল, যাক্ ভালই হয়েছে । গদাইয়েরও গান গেয়ে খুব আনন্দ । বাবার কাছ থেকে শেখা দেবতার ভজন কি সুন্দর গায় ।

কিন্তু বিশালাক্ষী থানের কাছাকাছি যেতেই তার গান থেমে গেল। দু’চোখ বেয়ে পড়তে লাগল জলের ধারা । প্রসন্ন বলে মেয়েটি এগিয়ে এসে তাকে ধরতেই তার কোলে অবসন্ন হয়ে ঢলে পড়ল । গদাইয়ের জ্ঞান হতেই সে বলল, ওরে গদাইকে কিছু খেতে দে ।

কিন্তু কি খেতে দেবে গদাইকে ? কারুর সঙ্গে ভোগের সামগ্রী ছাড়া যে আর কিছু নেই । প্রসন্ন বলল,ভোগের জিনিসই আলাদা করে ওকে দে । ওকে খাওয়ালেই তোদের পুণ্যি হবে ।

অনেকে পূজার জন্য আনা নৈবেদ্য থেকে কলা, দুধ ও বাতাসা গদাইয়ের মুখে তুলে দেয় ।

বড় খামখেয়ালী ছেলে গদাধর। পড়াশুনা মোটেই করেছে না । শুধু আড্ডা দিয়ে ঘুরে বেড়ায় । দল বেঁধে ছেলেদের সঙ্গে যাত্রা করে । কখনো সাজে কৃষ্ণ, কখনো শিব । দেখতে দেখতে বড় হতে লাগল গদাধর । দাদা রামকুমার বলেন, গাঁয়ে ওর লেখাপড়া কিছু হবে না । আমি ওকে কলকাতায় নিয়ে যাব । লেখাপড়া শেখাব ।

রামকুমার কলকাতায় ঝামাপুকুরে থাকেন । সেখানে একটা টোল খুলেছেন । সেখানেই ছোটভাইকে নিয়ে যেতে চান । কিন্তু সে গাঁ ছেড়ে যেতে চায় না

১৮৩৩ সালের ১৭ ফেব্রুয়ারী এই কামারপুকুর গ্রামে জন্ম হয়েচে গদাধরের । জ্ঞান হওয়ার পর থেকেই দেখেছে এখানকার পথ-ঘাট,পুকুর, মা-বাবা ও গাঁয়ের লোক-জনদের । এসব ছেড়ে যেতে কি ভাল লাগে ।

পৈতে হয়েছে । দাই-মা ধনী কামারনীর আদর পেয়েছে । মা চন্দ্রমণির দিকে যেমন টান, ধনী কামারনীর দিকেও টান তার কম নয় । বাবাকেও ভালবাসে খুব । কিন্তু সাত বছর বয়সেই বাবাকে হারাতে হল হঠাৎ । ছিলিমপুরে থাকেন বাবার ভাগনে রামচাঁদ । তার বাড়তে দুর্গাপূজায় পুরোহিত হয়ে পূজা করতে গিয়েছিলেন ক্ষুদিরাম । সেখানেই ভাসানের দিন রাত্রিবেলায় মারা গেলেন । সেই খবর পেয়ে মায়ের বুকে মুখ লুকিয়ে ফুঁপিয়ে ফুঁপিয়ে কাদল গদাধর ।

রাসমণির আর কাশী যাওয়া হল না । গঙ্গার তীরে দক্ষিণেশ্বরে মন্দির নির্মাণ করলেন । খরচ হল নয় লাখ টাকা । নবরত্ন বিশিষ্ট কালী মন্দির নির্মাণ করলেন । খরচ হল নয় লাখ টাকা । নবরত্ন বিশিষ্ট কালী মন্দির, উত্তর ভাগে রাধাগোবিন্দ মন্দির,পশ্চিমে গঙ্গার তীর জুড়ে দ্বাদশ শিবের মন্দির । মূর্তিও তৈরী হল । মূর্তি ছিল বাক্সের মধ্যে । দেখা গেল মূর্তি ঘামছে । রাত্রে স্বপ্ন দেখলেন রাণীমা । ভবতারিণী কালী বলছেন, আমাকে আর কতদিন এভাবে কষ্ট দিবি ? এবার আমায় মুক্তি দে ।

১২৬১ সালে বারোই জ্যৈষ্ঠ স্নানযাত্রার দিনে মন্দিরে মূর্তি প্রতিষ্টা হল ৤ কিন্তু মায়ের অন্নভোগ দেওয়ার কি হবে ? মার যে অন্নভোগ দেবার অধিকার তোমার নেই ৤ কারন তুমি যে জেলের মেয়ে ৤ দেবীকে ভোগ দেবো, তাতেও জাতবিচার ? রানীর হৃদয় ব্যাথায় ভরে উঠল ৤ রানীর জামাতা মথুরামোহন সব কিছু দেখাশুনা করতেন ৤ তিনি নানা দেশের পন্ডিতদের কাছে বিধান নিতে ছুটলেন ৤ কিন্তু সব পন্ডিতেরই এক কথা ৤ অচ্ছুৎ রামকুমারের কাছে । রামকুমার বিধান দিলেন মন্দিরের যাবতীয় সম্পত্তি যদি রানী কোন ব্রাহ্মণকে দান করেন তবেই অন্নভোগ দেওয়া চলতে পারে । রানী অকূলে যেন কূল পেলেন । তিনি ঠিক করলেন গুরুর নামে মন্দির দান করবেন । কিন্তু গুরুর বংশের কেউ পুরোহিত হয় এ তাঁর কাম্য নয় । কারণ তাঁরা সকলেই অশাস্ত্রজ্ঞ এবং আচারসর্বস্ব । অন্য সৎ ব্রাহ্মণ ও পাওয়া গেল না । অন্য কেউ মন্দিরের পূজা করতে রাজী হলেন না ।

মন্দির প্রতিষ্ঠা-উৎসবের দিন রামকুমার এলেন গদাধরকে সঙ্গে নিয়ে । বিরাট আয়োজন কালীবাড়িতে । যাত্রাগান, কালীকীর্তন,ভাগবত পাঠ । মহা ধুমধাম কান্ড । সকাল থেকে চলছে খাওয়া-দাওয়া আহূত কে অনাহূত, কার কি জাত খোঁজ খবর ও নেয় না কেউ ।

গদাধর কিন্তু কিছু্ই খেলেন না । বাজার থেকে মুড়ি কিনে খেয়ে সারাদিন কাটিয়ে দিলেন । রাত্রিবেলা রামকুমার গদাধরকে জিজ্ঞেস করলেন, এখানকার ভোগের প্রসাদ তুই নিলি না কেন?

গদাধর জবাব দিলেন এমনি নেইনি ।

রামকুমার অবাক হলেন । অথচ এই গদাধরই ছোটবেলায় ধনী কামারনীর কাছ থেকে ভিক্ষা নিয়েছেন । শিয়র গ্রামের রাখালদের সঙ্গে বসে খেয়েছিল । খেয়েছিল ছুতোর বাড়ির বউয়ের হাতে খিচুড়ি রান্না । চিনিবাস শাঁখারীর হাতে মিষ্টি ।আনুড়ে বিশালাক্ষী মায়ের থানে নানা জাতের মেয়েদের দেওয়া পূজার প্রসাদ খেয়েছিল । তখন তো জাতবিচার করেনি । আশ্চর্য !

কারণ জিজ্ঞেস করলে গদাধর জবাব দিলেন, ওরা দিয়েছিল অতি যত্নের বিদুরের খুদ । কিন্তু এ যে হেলায় ফেলায় দেওয়া দুর্যধনের রাজভোগ ।

জবাব শুনে অবাক হয়ে গেলেন রামকুমার । বাঃ, রামায়ণ মহাভারত পড়ে আর টোলের নানা বই ঘাটাঘাটি করে অনেক কিছু তো এ বয়সে গদাধর শিখে ফেলেছে ।

রামকুমার বললেন, তা হলে কি করতে বলিস আমাকে ? ঝামাপুকুরে ফিরে যাব ? রাণীমা যে আমাকে এখানে পুরোহিত করতে চান । সে কাজ তা হলে নেব না ?

গদাধর বললেন, কথা যখন দিয়েছ তখন ছাড়বে কেন? আর তোমার টোল ও তো প্রায় উঠেই গেছে । তুমি এখানেই থাক ।

মথুরামোহন সেই মূর্তি নিয়ে গেলেন জানবাজারের বাড়িতে । রাসমণিকে দেখিয়ে বললেন, দেখুন মা, পুরুত ঠাকুরের ছোট ভাই গড়েছে ।

রাসমণি বললেন, বাঃ বেশ তো । ওঁকে আমাদের মন্দিরের বিগ্রহের সাজনদার করলে বেশ হয় ।

মথুরামোহন বললেন, আচ্ছা, আমি বলে দেখি পুরুত ঠাকুরকে । পরদিন মথুরামোহন দক্ষিণেশ্বরে এসে রামকুমারকে ব্যাপারটা জানালেন । রামকুমার বললেন, গদাই যা খামখেয়ালী ছেলে । আমার কথা কি শুনবে ? আপনি বললে যদি রাজী হয় ।

মথুরামোহন তখন ডেকে পাঠালেন গদাধরকে । গদাধর ভয়ে ভয়ে গিয়ে দাঁড়ালেন মথুরাবাবুর সামনে । মথুরাবাবু বললেন, তুমি ঘুরে ঘুরে বেড়াও কেন ? তোমার মনের মতো একটা কাজ দিলে করবে ?

-কি কাজ?

-মা ভবতারিণীকে তুমি নিজের মতো করে সাজাবে ।

ভয়ে কুঁকড়ে উঠলেন গদাধর । বললেন, একা সাহস হয় না সেজবাবু । ঘরে সব দামী দামী জিনিস । সঙ্গে হৃদয় থাকে তো পারি ।

-বেশ তো । সে তোমার সাগরেদ থাকবে । কাজ করবে দু’জনে মিলে ।

মনের মতো কাজ পেয়ে খুশীই হলেন গদাধর ।

জন্মাষ্টমীর পরদিন নন্দোৎসব । রাধা-গোবিন্দের মন্দিরে বিশেষ পূজা ও ভোগ অনুষ্ঠান । সেই বিগ্রহের পূজারী ক্ষেত্রনাথ । দুপুরে পূজোর পর পাশের ঘরে শয়ন দিতে নিয়ে যাচ্ছেন রাধা-গোবিন্দকে । হঠাৎ পা পিছনে ক্ষেত্রনাথ পড়ে গেলেন । হাত থেকে পড়ে গিয়ে ভেঙে গেল গোবিন্দের একটি পা । ‍

মন্দিরে হইচই পড়ে গেল । হায়, একি অঘটন । রানী রাসমণিকে খবর পাঠানো হল । তিনি মথুরামোহনকে বললেন, পন্ডিতদের কাছ থেকে বিধি নাও, কি ভাবে ঐ বিগ্রহের পূজা করা হবে ? মথুরামোহন অনেক পন্ডিতের সঙ্গেই পরামর্শ করলেন । তাঁরা বললেন, ঐ বিগ্রহের গঙ্গায় বিসর্জন দিতে হবে । তার জায়গায় বসাতে হবে নূতন মূর্তি ।

কিন্তু রাণীর মন তাতে সায় দিল না । সে গোবিন্দকে এতদিন গৃহদেবতা রূপে পূজা করা হয়েছে তাকে বিসর্জন দিতে হবে ?

গদাধরের কানে সে কথা যেতেই তিনি বললেন, সে কি কথা । কোন জামাইয়ের যদি ঠ্যাং ভেঙ্গে যায়, তাতে কি ফেলে দিতে হবে, না চিকিৎসা করাতে হবে । গোবিন্দ গৃহদেবতা, নিতান্ত আপন । সেই আপনজনকে ফেলে দেব কেন? আমিই ঠাকুরের পা জোড়া লাগিয়ে দিচ্ছি ।

একথা শুনে রাসমণির মনের চিন্তা দূর হয়ে গেল । তিনি বললেন, ছোট ভট্টাচার্য যা বলেছেন তাই ঠিক ।

গদাধর মাটি দিয়ে সুন্দরভাবে জুড়ে দিলেন গোবিন্দের পা । বোঝাই গেল না যে পা ভেঙ্গে গিয়েছিল । সেই মূর্তিই সিংহাসনে বসানো হল ।

ক্ষেত্রনাথ পুরোহিতের কাজ ছেড়ে দিয়ে চলে গেলেন । গদাধরকে নিযুক্ত করা হল রাধাগোবিন্দ মন্দিরের পুরোহিত । গদাধর কোন আপত্তি করলেন না । মতিগতি দিন দিন একটু ভাল হচ্ছে তাঁর । নিজেই একদিন বললেন, আমাকে দীক্ষা দাও ।

কেনারাম ভট্টাচার্য নামে এক নিষ্ঠাবান ব্রাহ্মণকে এনে গদাধরকে দীক্ষা দেওয়া হল । তারপর থেকে পূজার দিকে খুব মন দিলেন গদাধর । রামকুমার ভাবলেন, গদাইয়ের হাতে ভবতারিণীর পূজোর ভার দিয়ে কিছুদিনের জন্য দেশ থেকে ঘুরে আসি । তাই গদাধরকে শক্তি পূজার পদ্ধতি শেখাতে লাগলেন ।

গদাধর এখন আগের চাইতে অনেক সংযত ও ধীরস্থির । কিছুদিন পর ভবতারিণীর পূজার ভার গদাইয়ের আর রাধাগোবিন্দের পূজার ভার হৃদয়ের হাতে দিয়ে রামকুমার দেশের দিকে রওনা হয়ে গেলেন । কিন্তু বিধির কি আশ্চর্য লীলা ! রামকুমার বাড়িতে গিয়ে পৌছাতে পারলেন না । পথেই অসুস্থ হয়ে এক আত্মীয়ের বাড়িতে আশ্রয় নিলেন । সেখানেই মারা গেলেন ।

সে খবর শুনে কি কান্নাই না কেঁদেছিলেন গদাধর ।

তারপর বেশ কিছুদিন কেটে গেছে ।

দেশ থেকে ঘুরে এসে ভবতারিনীর পূজায় মন দিয়েছেন গদাধর । কিন্তু পূজার ধরন-ধারণ যেন পালটে গেছে অনেক । হৃদয় অবাক হয়ে গেল তার ছোটমামার হাবভাব দেখে । একদিন দেখল গদাধর মায়ের মূর্তির হাত টিপে দেখলেন তারপর ছুটে চলে গেলেন বাইরে । ভূত প্রেত সাপ নেউলের ভয় নেই । পঞ্চবটী বনের মধ্যে ঢুকে পড়লেন । পরনের কাপড় খুলে গেল, গলার পৈতে লুটোপুটি খেতে লাগল মাটিতে ।

আর একদিন দেখল হৃদয়, গদাধর মা কালীর মূর্তির সামনে বসে কাঁদছেন । বলছেন, মা গো রামপ্রসাদকে তুই দেখা দিয়েছিস, আমাকে দেখা দিবি না কেন?

হৃদয় একদিন জিজ্ঞেস করল, মামা এসব ঢং করো কেন ? গদাধর জবাব দিলেন ওসব ঢং নয় রে । মাকে পেতে হলে শাপমুক্ত হতে হবে । অষ্ট পাশ । ক্ষুধা, লজ্জা, কুল, শীল, ভয়, মান, জাত, দম্ভ এসব ছাড়তে হয় ।

পঞ্চবটীতে সারারাত পঞ্চমুন্ডিত আসনে বসে ধ্যান করেন গদাধর । রাত্রি শেষে বেরিয়ে আসেন । পা টলছে মাতালের মত । মন্দির খুলতে না খুলতেই ঢুকে পড়লেন ভেতরে । বিগ্রহের সামনে দাঁড়িয়ে বললেন, দেখা দিবি না ? বেশ, চাই না দেখতে । রাক্ষসী তুই তাই তো রক্ত মেখে মুন্ডুমালা গলায় রাখিস । আরো খাবি রক্ত ?

মন্দিরের দেওয়ালে ঝুলছে বলির খাঁড়া । সেই খাঁড়াটি নিয়ে নিজের গলা কাটবার জন্য তুলে ধরলেন । মন্দিরের আঙিনায় তখন ভিড় জমে গেছে । কিন্তু হঠাৎ প্রতিমার পায়ের কাছে মূর্ছিত হয়ে পড়ে গেলেন গদাধর । ধরাধরি করে অচেতন গদাধরকে নিয়ে যাওয়া হল তাঁর ঘরে । পরের দিনও নয় । সময় সময় একটু জ্ঞান হয় আর কি যেন বিড় বিড় করে বলেন । আবার জ্ঞান হারিয়ে যায় ।

সিয়রে হৃদয়ের বাড়িতে গেলেন গদাধর । সেদিন সেখানে গানের আসর বসেছিল । একটি স্ত্রীলোকের কোলে ছিল একটি ফুটফুটে মেয়ে । টুল টুল করে তাকিয়ে চারদিক দেখীছল । স্ত্রীলোকটি রহস্য করে জিজ্ঞেস করল মেয়েটিকে, বিয়ে করবি ? মেয়েটি ঘাড় নাড়ল ? কাকে বিয়ে করবি এত লোকের মধ্যে ?মেয়েটি গদাধরকে দেখিয়ে বলল, ঐ যে !

মেয়েটি জয়রামবাটির রামচন্দ্র মুখুজ্যের মেয়ে সারদামণি । একদিন শুভলগ্নে গদাধরের সঙ্গে ওরই বিয়ে হয়ে গেল । প্রায় দু’বছর কামারপুকুরে থাকার পর দক্ষিণেশ্বরে ফিরলেন । মা কালীর পূজোর ভার আবার তাঁরই ওপর পড়ল ।

রানী রাসমণির অসুখ । হঠাৎ একদিন পড়ে গিয়ে কোমরে ব্যাথা পেলেন । শয্যাশায়ী হলেন একেবারে ।

মনে শান্তি নেই রাসমণির । আঠারোশো একষট্টি সালের আঠারোই ফেব্রুয়ারি সেই সম্পত্তির দানপত্র রেজিষ্ট্রি হয়ে গেল । পরের দিন রাসমণি বললেন, আমাকে কালীঘাটে নিয়ে চল । সেখানেই মায়ের কাছে শেষ নিঃশ্বাস ফেলব ।

বিছানা সাজিয়ে মৃত্যুপথযাত্রী রাণীর দেহ আনা হল আদিগঙ্গার তীরে । আমাবস্যার অন্ধকার রাতে রানীর পুণ্যাত্মা দেহ ছেড়ে চলে গেল । দক্ষিণেশ্বরে ঘরের বারান্দায় অস্থির ভাবে পায়চারি করেছিলেন গদাধর । হঠাৎ বলে উঠলেন, চলে গেল রে, চলে গেল রাসমণি । মায়ের অষ্টনায়িকার এক নায়িকা ।

একদিন সকালবেলা বাগানে ফুল তুলছেন গদাধর । এমন সময় বকুলতলার ঘাটে একটি নৌকা এসে ভিড়ল । এক সুন্দরী স্ত্রীলোক নামলেন নৌকা থেকে । পরনে গেরুয়া শাড়ি, হাতে ত্রিশূল । বয়স হয়েছে ভৈরবীর । কিন্তু কী রূপের ছটা । গদাধরকে বললেন, এই যে বাবা, তুমি এখানে । জানি তুমি গঙ্গাতীরে আছ । তাই তোমাকে খুঁজে বেড়াচ্ছি ।

শুনে গদাধর অবাক । তুমি আমাকে খুঁজে বেড়াচ্ছ মা?

মা মহামায়াই পাঠিয়ে দিলেন ।

পঞ্চবটীতে ভৈরবীর থাকবার ব্যবস্থা হল । তিনি সেখানে থাকেন । তাঁর ঝোলায় আছে তন্ত্রশাস্ত্র, গীতা,ভগবত্ । গদাধরকে পড়ে শোনান । নানা বিষয়ে আলোচনা হয় । শাস্ত্রে অগাধ জ্ঞান ভৈরবীর । কিন্তু নানা লোকের মনে নানা রকম সন্দেহ । সুন্দরীর ভৈরবঅ কি রম্ভা মেনকার মত গদাধরের মনের পরিবর্তন ঘটাতে এসেছেন ? কিন্তু কিছুদিন পরেই দেখা গেল, ভৈরবী এসেছেন গদাধরের প্রকৃত রূপ উদঘাটনের জন্য । তিনি বললেন, গদাধর মানব দেহধারী শ্রীরামচন্দ্র । তান্ত্রিক মতে শক্তি-দীক্ষা তিনি দিলেন গদাধরকে ।

একদিন মড়ার মাথার খুলিতে মাছ বেঁধে ভোগ সাজালেন ৤ কালীকে নিবেদন করে গদাধরকে বললেন, প্রসাদ নাও ৤ গদাধর নির্বিবাদে প্রসাদ গ্রহণ করলেন ৤

ভৈরবী বললেন, এবার বৈষ্ণবমতে সাধনা কর বাবা ৤ চারটি বেদ, আঠারোটি পুরাণ, চৌষট্টি তন্ত্রে যে রাস মেলে না, তাই মেলেনা, তাই মেলে বৈষ্ণব মতে সাধনায় ৤

গদাধর রাজী হলেন ৤ কী অপূর্ব যোগাযোগ ! সেই সময়ে এলেন বেদান্তপন্থী অদ্বৈতবাদী সন্ন্যাসী পরমহংসদেবের দল ৤ তাঁদের সঙ্গে করেন শাস্ত্র আলোচনা ৤ অতি সহজভাবে গভীর তত্ত্ব নিয়ে আলোচনা করলেন ৤ সাধুরা খুশী হলে আশীর্বাদ করে গদাধরকে বললেন, তুমি ধর্মের সারমর্ম বুঝেছ ৤ তুমি পরমহংস ৤

কিছুদিন পর এলেন সন্ন্যাসী তোতাপুরী ৤ পাণ্জাবের লুধিয়ানায় তাঁর মঠ ৤ চল্লিশ বছর সাধনা করেছেন ৤ বেরিয়েছেন তীর্থ দর্শনে ৤ তাঁকে দেখে গদাধর ভক্তিভরে প্রণাম করলেন ৤ যেন কতকালের পরিচিত ৤  গদাধর বললেন, আমাকে দীক্ষা দিন ।

তোতাপুরী বললেন, দিতে রাজী আছি , কিন্তু তোমাকে গৈরিক বস্ত্র পরতে হবে । গদাধর বললেন, গৈরিক পরতে পারব না । ছোটবেলাতেই মায়ের কাছে কথা দিয়েছি । সন্ন্যাসী না সেজেও আমি সন্ন্যাস নেব ;

 

তোতাপুরী ভাবলেন, মনে যার রং ধরেছে, তার দেবহারণের রং বিচার করে লাভ নেই । তাই তিনি গদাধরকে দীক্ষা দিলেন । বললেন, আজ তোমার নতুন জন্মলাভ হল । তোমার নাম এখন হবে রামকৃষ্ণ আর পদবী হবে পরমহংস । পরমহংস কাকে বলে জান তো ? দুধে জলে এক সঙ্গে থাকলেও যিনি হাসের মত জলটি ছেড়ে দুধটি নিতে পারেন, তিনিই পরমহংস ।

তোতাপুরী বিদায় নিয়ে চলে গেলেন । ক’দিন পরেই এলেন গোবিন্দ রায় । জাতে ক্ষত্রিয় । কিন্তু মুসলমান হয়েছেন । আরবী ফারসীতে পন্ডিত । রামকৃষ্ণ তাকে বললেন, আমি মুসলমান ধর্মমতে সাধন ভজন করব । কত মানুষ কত পথে সাধনা করে বাঞ্চিত ধামে গিয়ে পৌঁছায় । আমি এই পথটাকে বাদ দেব কেন ?

গোবিন্দ রায় দীক্ষা দিলেন রামকৃষ্ণকে । কাছা খুলে ফেললেন । কাপড় পরলেন লুঙ্গির মত করে । পাঁচ বেলা নামাজ পড়তে লাগলেন । একদিন মুসলমানদের রান্নার মত রান্না করিয়ে খেলেন ।

একদিন ভাবাবিষ্ট অবস্থায় রামকৃষ্ণ দেখলেন গৌরবর্ণ সুপুরুষ যীশিুখ্রীস্ট এসে তাঁর সামনে দাঁড়িয়েছেন । যীশুর ভজনা করতে করতে তিনি সমাধিস্থ হয়ে গেলেন ।

মা চন্দ্রমনিও ছেলে গদাধরকে দেখবার জন্য দক্ষিণেশ্বরে এলেন । তিনি নহবতের ঘরে থাকেন । ছেলের সঙ্গে প্রতিদিন দেখা হয় । কিছুদিনের পর স্ত্রী সারদামণিরও এসে হাজির হলেন । রামকৃষ্ণ তাঁকে জিজ্ঞেস করলেন, কি গো, তুমি কি আমাকে সংসার পথে টেনে নিতে এসেছ ?

সারদা জবাব দিলেন, না । তোমার ইষ্টপথে সাহায্য করার জন্যই আমি এসেছি ।

ঠাকুর রামকৃষ্ণের শিক্ষায় শ্রীমতি সারদা সুনিপুণা হতে লাগলেন । প্রকাশ পেতে লাগলেন জগতের মঙ্গলসাধিকা শক্তিরূপে ।

চন্দ্রমণির বয়স অনেক হয়েছিল শেষ বেয়সে ছেলেকে দেখবার আকাঙ্খা হয়েছিল ভিষণ । সে আশা তাঁর পুরণ হল । একদিন দক্ষিণেশ্বরেই রোগশয্যায় পুত্রকে শিয়রে রেখে মা চোখ বুজলেন ।

রামকৃষ্ণ স্বমহিমায় প্রতিষ্ঠিত হয়েছেন । দক্ষিণেশ্বরে ও হয়ে উঠেছে তীর্থভূমি । সেখানে মাঝে মাঝেই এসে উপস্থিত হন কত সাধুপুরুষ, কত গুণী জ্ঞানী । বিখ্যাত মানুষ । তিনিও মাঝে মাঝে বিখ্যাত মানুষদের বাড়ি যান । একদিন গেলেন মহষি দেবেন্দ্রনাথ ঠাকুরের বাড়ি । খ্রীস্টধর্মের বন্যায় যখন দেশটা ডুবে যাবার উপক্রম হয়েছিল তখন ব্রাহ্মণধর্মের জীবন তরণী ভাসিয়ে বহু মানুষকে উদ্ধার করেছেন । দেবেন্দ্রনাথকে রামকৃষ্ণ বললেন, তুমি তো পাকা খেলোয়াড় হে । একসঙ্গে দু’খানা তলোয়ার ঘোরাও, একটি কর্মের আর একটি জ্ঞানের ।

ব্রাহ্মণধর্মের অন্যতম প্রবর্তক কেশবচন্দ্র সেনের বাড়িও গেলেন একদিন । সেখানে গিয়ে গান করতে করতে রামকৃষ্ণ সমাধিস্থ হয়ে পড়লেন । আর একদিন গেলেন বিদ্যাসাগরের বাড়িতে । বললেন, এতদিন খাল বিল দেখেছি, এবার সাগর দেখলুম । বিদ্যাসাগর হেসে বললেন, তবে নোনা জল খানিকটা নিয়ে যান । রামকৃষ্ণ বললেন, না গো! নোনা জল কেন? তুমি যে বিদ্যার সাগর, ক্ষীরসমুদ্র । নরেন্দ্রনাথ নিজেই এসেছিলেন রামকৃষ্ণের কাছে । বিখ্যাত দত্ত বাড়ির ছেলে, শিক্ষিত তরূণ । রামকৃষ্ণের প্রভাবে তিনি হয়ে গেলেন স্বামী বিবেকানন্দ ।

ঠাকুর রামকৃষ্ণ শুধু সাধকই নন , তিনি যে প্রেমাবতার । প্রেম বিলাতে বিলাতে তিনি মানুষের মনের কলুষ কে দূর করতে লাগলেন, মানুষের মনের পাপ হরণ করতে গিয়ে নিজেই হলেন নীলকণ্ঠ ।

গলায় তাঁর ক্ষতরোগ হল । ক্যান্সার । চিকিৎসার জন্য তাঁকে চিকিৎসকের নির্দেশে শিষ্যদের এবং সাধারণ মানুষের তাঁর কাছে যেতে মানা । কিন্তু প্রেমের ঠাকুর রামকৃষ্ণ সেই নিষেধ উপেক্ষা করে কল্পতরু উৎসবের অনুষ্ঠান করলেন । সর্বধর্মের সকল শ্রেণীর মানুষের সঙ্গে হৃদয়ের প্রেম নিঃশেষ বিতরন করতে লাগলেন ।

ইংরেজি ১৮৮৬ সাল, বাংলা ১২৯৩ সালের ১ লা ভাদ্র মহাসমাধিতে নিমগ্ন হলেন যুগাবতার শ্রীরামকৃষ্ণ । ‍

 

সম্বন্ধে সোনিয়া পারভিন

এছাড়াও পড়ুন

৯৭. সত্যজিৎ রায়

৯৭. সত্যজিৎ রায় [১৯২১-১৯৯২] বিশ্ববরেণ্য জাপানী চলচ্চিত্র পরিচালক আকিরা কুরোসাওয়া তাঁর সম্পর্কে বলেছিলেন, “এই পৃথিবীতে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

4 × 3 =